1
চিকুনগুনিয়া এবং এর হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা (Chikungunya and Homeopathy treatment)

চিকুনগুনিয়া ভাইরাল রোগ যা সংক্রামিত মশা দ্বারা মানুষের মধ্যে ছড়ায়। চিকুনগুনিয়া জ্বর মূলত চিকুনগুনীয় ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়। কিছু ক্ষেত্রে সংক্রামিত গর্ভবতী মা থেকে নবজাতক শিশুরও রোগ সংক্রমণ দেখা যেতে পারে। চিকুনগুনের সবচেয়ে সাধারণ ভেক্টরটি হল এডিস ইজিপটি (Aedes Egypti) মশা। কিছু ক্ষেত্রে মশা্র আরেকটি প্রজাতি এডিস এলবোপিক্টাস (Aedes Albopictus) অভিযুক্ত। চিকুনগুনিয়া সাধারণত জীবনের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ নয়।

Chikungunya and Homeopathy treatment
চিকুনগুনিয়া এবং এর হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা (Chikungunya and Homeopathy treatment)


চিকুনগুনিয়ার উৎপত্তিঃ

আফ্রিকায় ১৯৫২ সা্লে চিকুনগুনিয়া রোগ প্রথম ধরা পড়েছিল। এর মানে হল যে চিকুনগুনিয়া প্রায় একটি নতুন রোগ। যেখানে এটি প্রথম মাকন্ডে প্লাটো নামক স্থানে সনাক্ত হয়েছিল। মাকন্ড ভাষায়, চিকুনগুনিয়া মানে ন্যুব্জ বা বেঁকে যাওয়া। চিকুনগুনিয়া রোগী সন্ধি ব্যথা প্রায় সংকুচিত হয় বা ন্যুব্জ হয়ে পড়ে, তাই এমন নামকরণ করা হয়েছিল।

চিকুনগুনিয়া সুপ্তাবস্থাঃ

চিকুনগুনিয়ার সুপ্তকাল ১-১২ দিন। সুপ্তাবস্থা হচ্ছে প্রাথমিক সংক্রমণের পরে থেকে চিকুগুনিয়ার উপসর্গ প্রকাশের মধ্যবর্তী সময়।

এপিডেমিওলজিঃ

চিকুনগুনিয়া প্রথমবারের মতো ১৯৫২ সালে তানজানিয়া, আফ্রিকাতে মাকন্ডে প্লাটো নামক স্থানে ছড়িয়ে পড়ে। এই রোগটি প্রথম মারিওন রবিনসন (Marion Robinson) এবং ডব্লিও.এইচ.আর. লুমসডেন (W.H.R. Lumsden) কর্তৃক বর্ণনা করা হয়েছিল। মালয়েশিয়ায় পোর্ট ক্লাঙে ১৯৯৯ সালে ২৭ জন মানুষের মধ্যে চিকুনগুনিয়ার আবির্ভাব ঘটেছিল। ফেব্রুয়ারী ২০০৫ সালে, ভারত মহাসাগর নিকটবর্তী ফরাসিদের মধ্যে একটি প্রাদুর্ভাব ঘটেছিল। মরিশাসে ২০০৫ সালে, ২৫০০ জন দ্বীপপুঞ্জবাসীকে আঘাত হানে। মাদাগাস্কার, মায়োত এবং সিসিলিতেও চিকুনগুনিয়ার আক্রমণ ঘটে।

২০০৬ সালে ভারতের অন্ধ্র প্রদেশে একটি বৃহৎ প্রাদুর্ভাব ঘটেছিল। প্রায় ২,০০০০০ মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হয়। এতে কিছু মৃত্যুর রিপোর্ট করা হয়েছে, কিন্তু এটি মনে করা হয় মূলত এন্টিবায়োটিক এবং অ্যান্টি-প্রদাহযুক্ত ট্যাবলেটগুলির অনুপযুক্ত ব্যবহারের কারণে হয়েছিল।

২০০৮ সালের অক্টোবরের শেষের দিকেবাংলাদেশে প্রথম চিকুনগুনিয়ার সনাক্তকরণ হয়। এর পর ২০১১ সালে ঢাকা জেলা দোহার উপজেলার একজন স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জ্বর এবং জয়েন্ট ব্যথা এর প্রাদুর্ভাব ঘটেছিল বলে রিপোর্ট করেছেন।

চিকুনগুনিয়া ভাইরাসের শ্রেণীবিভাগঃ
গ্রুপ (Group): গ্রুপ চতুর্থ ((+) ssRNA)
পরিবার (Family): টোগাভিরিডি (Togaviridae)
লিঙ্গ (Genus): আলফা ভাইরাস(Alphavirus)
প্রজাতি (Species): চিকুংগুনিয়া ভাইরাস (Chikungunya virus)

চিকুনগুনিয়া লক্ষণঃ

চিকুনগুনিয়ার প্রাথমিক লক্ষণগুলি মধ্যে অন্তর্ভুক্ত -
* জ্বর যা ৩৯° সে (১০২.২ ডিগ্রি ফারেনহাইট) পৌঁছাতে পারে
* একটি পেটেকিয়াল (চামড়ার উপরে লাল বা নীলচে দা্গ) বা ম্যাকুলোপাপুলার দাগ সাধারণত হাত পা  এবং
বুকে-পিঠে হয়
* আর্থ্রাল্জিয়া (শরীর ব্যথা) বা একাধিক জয়েন্টগুলোতে বাতের ব্যথা যা শরীরকে দুর্বল করে দিতে পারে। জয়েন্ট ব্যথা গুরুতর হতে পা্রে এবং এমনকি খোঁড়া বা পঙ্গু হতে পারে। এছাড়াও মাথাব্যাথা,  সংক্রমণ এবং সামান্য আলোকভীতিও হতে পারে।
* জ্বর সাধারণত দুই দিনের জন্য স্থায়ী হয় এবং আকস্মিকভাবে নিচে আসে, তবে জয়েন্ট ব্যথা, তীব্র মাথা ব্যথা, অনিদ্রা এবং একটি চরম অবসাদের মাত্রা বেশ সময়ের জন্য থাকে, প্রায় 5-7 জন্য দিন। চিকুনগুনিয়া জ্বরের সাম্প্রতিক প্রাদুর্ভাবে চর্মরোগ প্রকাশ ঘটে, যাতে নিম্নলিখিত অন্তর্ভুক্ত লক্ষণ রয়েছেঃ

চিকুনগুনিয়া এবং এর হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা (Chikungunya and Homeopathy treatment)
চিকুনগুনিয়া এবং এর হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা (Chikungunya and Homeopathy treatment)


* ম্যাকুলোপ্যাপুলার দাগ
* নাকে অস্বাভাবিক লালচে ফুস্কুড়ি
* মুখের উপর জালের মত তা্মাটে দাগ
* মুখে এবং হাত পায়ের উপর পতাকাঙ্কটিত দাগ
* শরীরে আলোক পড়ে এমন স্থানে আম বাতের মত দাগ পড়ে
* অন্ডথলি, কোমর থেকে হাটুর উপর এবং বগলে এফথাস ক্ষতের মত ক্ষত হয়
* লিম্ফোইডিমা হতে পারে(দ্বিপার্শ্বিক / একপার্শ্বিক)
* একাধিক রক্তাক্ত দাগ (শিশু)
* ভেসিকুলোবোলাস ক্ষত (শিশু)
* উপজাতীয় রক্তক্ষরণ

ইনভেস্টিগ্যাশনঃ

* কিছু কিছু রোগীর লিউকোপেনিয়া বিকাশ করে।
* অ্যাসপার্টেট আমিনোট্রান্সফারেছ (AST) এবং সি-রিঅ্যাক্টিভ প্রোটিন এ হালকাভাবে প্লেটলেট সংখ্যা হ্রাস পায়।

রোগ নির্ণয়ঃ

অসুস্থতার প্রথম ৪-৫ দিনের মধ্যে রক্ত থেকে ভাইরাস বিচ্ছিন্ন করা সম্ভব। চিকুনগুনিয়ার সাধারণ লক্ষণগুলি হলো - হঠাৎ গুরুতর মাথা ব্যথা, ঠাণ্ডা, জ্বর, জোড়া বা সন্ধি ব্যথা এবং পেশী ব্যথা। ডায়গনস্টিক পরীক্ষাগুলির মধ্যে - ELISA অথবা EIA – enzyme immunoassay অথবা polymerase chain reaction (PCR) ব্যবহার করে রক্তে অ্যান্টিজেন বা অ্যান্টিবডিগুলির সনাক্তকরণ করা।
ELISA মাধ্যমে সেরোলজিক্যাল অ্যাসেসগুলি দ্বারা সনাক্তকৃত অ্যান্টিবডিগুলির IgM দ্বারা ডেঙ্গু জ্বর থেকে এটিকে পার্থক্য করা যায়।

জটিলতাঃ

* ব্যাকটেরিয়া দ্বারা উপরন্তর সংক্রমণ হতে পারে।
* মেনিংগো এনসেফালাইটিস হতে পারে।
* রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কম (immunocomprised) রোগীদের মধ্যে মৃতুও দেখা দিতে পারে।
* মায়োকারডাইটিস (Myocarditis)
* নিউমোনিয়া (Pneumonia)
* কিছু অ্যান্টি-প্রদাহজনিত ওষুধ প্রয়োগের কারণেও জটিলতা দেখা দেয়।

প্রতিরোধঃ

চিকুনগুনিয়া সংক্রমণ প্রতিরোধ করার সর্বোত্তম উপায় মশার কামড় প্রতিরোধ করা। হোমিওপ্যাথিক ওষুধ ছাড়া এর কোন টিকা বা প্রতিষেধক ঔষধ নাই। প্রতিরোধী টিপসগুলি ডেঙ্গু ভাইরাসে আক্রান্তদের মতোইঃ-

* পোকামাকড় প্রতিরোধী ব্যবহার করুন
* লম্বা কাপড় এবং প্যান্ট পরিহিত থাকুন।
* মশার বাইরে রাখার জন্য জানালা এবং দরজাগুলির নিরাপদ পর্দা ব্যবহার করুন।
* ফুলের পাত্রগুলি, বালতি এবং ব্যারেল থেকে স্থায়ী পানি খালি করে মশার প্রজনন রোধ করতে হবে। পোষা প্রাণীর জলের পাত্রের জল পরিবর্তন করুন। টায়ারের ঝাঁকিতে পানি জমে এমন গর্ত ছিদ্র করে পানি নিষ্কাশন করতে হবে।

উপরন্তু, চিকুনগুনিয়া জ্বর বা ডেঙ্গু দিয়ে আক্রান্ত ব্যক্তিকে সংক্রমন ছড়িয়ে পড়া এড়াতে মশার কামড় থেকে দূরে থাকতে হবে। তাকে ঘরের অভ্যন্তরে বা মশারীর মধ্যে থাকতে হবে। নারকেল তেল এবং নিমপাতা তেল মিশ্রিত প্রয়োগ মশার কামড় প্রতিরোধ করবে।

ইমিউনিটিঃ

একবার চিকুনগুনিয়া আক্রমণ করলে, সারাজীবনের জন্য ইমিউনিটি তৈরী হয়।

হোমিওপ্যাথিক প্রোফাইল্যাক্সিসঃ

ড. স্যামুয়েল হ্যানিম্যান দ্বারা পরিচালিত নির্দেশাবলী অনুযায়ী জৈব জীবাণুর সংক্রমণ একটি নির্দিষ্ট এলাকায় খুঁজে পাওয়া গেলে এবং অন্য কোথাও নির্দিষ্ট এলাকা ছাড়া এটি খুঁজে পাওয়া না গেলে হোমিওপ্যাথিতে এর অবশ্যই একটি প্রতিকার থাকতে পারে।

অনেক হোমিওপ্যাথ চিকুনগুনিয়ার প্রতিষেধক ঔষধ হিসাবে Eupatorium perfoliaum ব্যবহার করেন। প্রোফাইল্যাক্সিস হিসাবে ইউপ্যাটোরিয়াম পার্ফোলিয়ামের সর্বাধিক প্রস্তাবিত ওষুধের শক্তি হলো ২০০ শক্তি। বিভিন্ন রিপোর্ট অনুযায়ী হোমিওপ্যাথিক প্রোফাইল্যাক্সিসের জন্য দরকারী ওষুধগুলি হচ্ছে - ইউপ্যাটোরিয়াম পারফোলিয়াম, জেলসেমিয়াম, রাস টক্স, ব্রাইয়োনিয়া এল্বা, আর্সেনিকাম এল্বা, একোনাইট এবং পলিপরাস।

চিকিৎসাঃ

চিকুনগুনিয়া জ্বর সাধারণত সীমাবদ্ধ হয় এবং সময়ের সঙ্গে সমাধান হবে। লাক্ষণিক চিকিৎসা অন্যান্য আরো বিপজ্জনক রোগ আরোগ্য প্রদান করতে পারে। চিকুনগুনিয়ার এখন পর্যন্ত কোন ভ্যাকসিন হয়নি। হালকা ব্যায়ামে ভালো লাগে এবং সকালে আর্থ্রালজিয়ার ঝোঁক থাকে, কিন্তু ভারী ব্যায়াম উপসর্গ বাড়িয়ে দেয়।

চিকুনগুনিয়ার হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসাঃ 

মহামারী রোগের চিকিৎসার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ অর্গানন অফ মেডিসিনের এফোরিজম ১০০ - ১০২ অনুসারে চিকুওঙ্গুনিয়ার চিকিৎসা হয়। ডাঃ হ্যানিম্যান বলেছেন, একজন সাবধানে পর্যবেক্ষণকারী চিকিৎসক প্রায় জ্ঞানের কাছাকাছি পৌঁছাতে পারেন এমনকি প্রথম এবং দ্বিতীয় রোগীদের পরীক্ষা থেকে মহামারী সত্য অবস্থা এবং এটির জন্য একটি উপযুক্ত হোমিওপ্যাথিক ওষুধও খুঁজে পাওয়া যায়। ডাঃ হ্যানিম্যান বলেছেন, প্রতিটি মহামারী রোগীই একটি নতুন এবং অজানা ক্ষেত্রে হিসেবে তার উপসর্গ সাদৃশ্য অনুযায়ী ঔষধ নির্বাচন করতে হবে।

হোমিওপ্যাথিতে চিকুনগুনিয়া চিকিৎসার খুব ভাল সুযোগ আছে। প্রাথমিকভাবে নির্দেশিত একুইট ওষুধগুলি রোগীর সুস্থ্যতা প্রদান করতে পারে।

অন্তর্নিহিত মায়াজমঃ সোরা। 

কিছু গুরুত্বপূর্ণ হোমিওপ্যাথিক ওষুধ নিম্নরুপঃ-

১) ইউপ্যাটোরিয়াম পারফোলিয়াম (Eupatorium perfoliatium) - জ্বরের সাথে অঙ্গ ও পেশীর ব্যথা। হতে পারে গুরুতর হাড়ের ব্যথা। হাটু এবং পা ফুলে যায়। হাত পায়ের হাড়ের মধ্যে তীব্র ব্যথা এবংমাংসে ক্ষতবৃত ব্যথা। প্রচুর তৃষ্ণা, মাথা ব্যথা ছাড়া প্রায় সব উপসর্গগুলি ঘাম নিঃসরণে কমে যায়। ২০০ শক্তির ওষুধ এক্ষেত্রে বেশ কার্যকর। এই ঔষধটি জ্বর পরব্ররতী আর্থ্রালজিয়ায় (মাদার টিংচার ৫ ফোটা করে ৩-৫ দিন) অত্যন্ত কার্যকরী।

২) জেলসেমিয়াম (Gelsemium) - গুরুতর মাথাব্যথা এবং সঙ্গে নাক দিয়ে পানি পড়ে। তৃষ্ণা, ধীর নাড়ি, পেশী ব্যথা। তৃষ্ণার্ততা, দুর্বলতা এবং মাথা ঘোরা আদ্র আবহাওয়ায় বৃদ্ধি পায়।

৩) রাসটক্স (Rhustox)  - পলিয়ার্থাইটিস এবং ম্যাকুলোপ্যাপুলার র‍্যাশ বা দাগের সাথে জ্বর। জয়েন্টগুলোতে ব্যথা এবং শক্ততা। প্রথম গতিতে, ঠান্ডা ঋতুতে বাতের বৃদ্ধি। অস্থিরতা। ঠান্ডা, ভিজা, বৃষ্টিযুক্ত আবহাওয়ায় বৃদ্ধি। চিকুনগুনিয়ায় ২০০ শক্তি খুবই উপকারী।

৪) ব্রায়োনিয়া (Bryonia) - প্রত্যেক পেশীতে আঘাতসহ জ্বর। অত্যধিক তৃষ্ণার সাথে শুকনো মুখ, হাঁটু শক্ত এবং বেদনাদায়ক। সন্ধি বা জয়েন্ট লাল, ফুলাযুক্ত, সেলাই করা মত এবং ছিড়ে ফেলা সঙ্গে গরম। নড়াচড়ায় বাড়ে এবং বিশ্রামে কমে; বিস্ফোরিত হওয়া, মাথাব্যথা করা যেন সবকিছুই চাপা পড়ে যায়।

৫) আর্সেনিক এল্বা (Ars Alb) - জ্বর, তীব্র দুর্বলতার সময় অস্থিরতা এবং উদ্বেগ। নিখুঁত তৃষ্ণা, বমি বমি ভাব এবং বমি। জ্বর মধ্য দিবস বা মধ্যরাত্রিতে বৃদ্ধি।

৬) পালসেটিলা (Pulsatilla) - মৃদুতা, তৃষ্ণা এবং ভ্রান্ত জয়েন্ট ব্যথার সঙ্গে জ্বর।

৭) চায়না (China) - হাত পা এবং জয়েন্টগুলোতে থেতলে যাওয়ার মত ব্যথা। সামান্য স্পর্শে কমে।অধিক চাপে বাড়ে। জয়েন্টগুলো ফুলে যায় এবং রাতের ঘুমের মধ্যে ঘেমে যায়।

৮) বেলেডোনা (Belladona) - জ্বলন্ত তাপে উচ্চ জ্বর। জ্বর সঙ্গে কোন তৃষ্ণা থাকেনা। জয়েন্ট ফোলে
যায়, লালচে, সঙ্গে চার দিকে ছড়িয়ে পড়া ব্যথা। তাপ, লাল, দপদপ করা এবং জ্বলা অনুভূতি।

৯) পাইরোজেন (Pyrogen) - ইনফেকশিয়াস জ্বর, তাপমাত্রা দ্রুত বেড়ে যায়। অনেক গরম সাথে ঘাম কিন্তু ঘাম তাপমাত্রায় পতন ঘটায় না, অঙ্গ ও হাড়ে আঘাত পায়।

১০) নাক্স ভমিকা (Nux vomica) - মৃদুতা সহ জ্বর, বমি বমি বমি, জন্য অকার্যকর অনুরোধ।

১১) সালফার (Sulphur) - বার বার আক্রমণ থেকে রক্ষা করে।

সম্প্রতি একজন হোমিওপ্যাথিক ডাক্তার দাবি করেন যে, পলিপরোস পিনিকোলো ১০০০ক্স একক ডোজ সঙ্গে
চিকুনগুনিয়া নিরাময় হবে।


Post a Comment

 
Top